যুবলীগ সংবাদ :

শোকাবহ আগস্ট মাসব্যাপী বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের কর্মসূচী যুবজাগরণ পাঠাগার ও বিক্রয়কেন্দ্র উদ্বোধন বঙ্গমাতাকে নিয়ে যুবলীগের স্মারকগ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে রুখে দাড়াতে হবে : যুবলীগ চেয়ারম্যান জঙ্গিমুক্ত দেশ গড়তে যুবলীগের শপথ রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস পালিত শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে যুবলীগের সপ্তাহব্যাপী কর্মসূচি স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে যুবলীগের শ্রদ্ধাঞ্জলী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষ্যে যুবলীগের শ্রদ্ধাঞ্জলী বইমেলায় যুবলীগের নান্দনিক আয়োজন যুবলীগ চেয়ারম্যান সম্পাদিত বইয়ের মোড়ক উন্মোচন আওয়ামী যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান শেখ ফজলুল হক মনির ৭৭ তম জন্মদিন পালিত। পৌর নির্বাচনী প্রচারণায় যুবলীগের কমিটি গঠন মোমবাতি জ্বালিয়ে শহীদদের প্রতি যুবলীগের শ্রদ্ধা মালয়েশিয়ায় যুবলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার অগ্রযাত্রার মিছিলে তারুণ্যের প্রেরণা আর সাহসের দিন শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস---যুবলীগ চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ওমর ফারুক চৌধুরী
আওয়ামী লীগ গণমানুষের দল, বাঙালির দলঃ ওমর ফারুক চৌধুরী
03/03/2014 12:46 AM

৩১ ডিসেম্বর, ২০১২

আওয়ামী লীগ গণমানুষের দল, বাঙালির দলঃ  ওমর ফারুক চৌধুরী 

বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ওমর ফারুক চৌধুরী বলেছেন, আওয়ামী লীগ গণমানুষের দল, বাঙালির দল। বাংলাদেশের মানুষের চেতনার দল। তাই এ দলের কাউন্সিল বাংলাদেশের মানুষের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। আওয়ামী লীগের এ কাউন্সিলের মাধ্যমে নেতৃত্ব নির্বাচিত হয়, নেতৃত্বের বিকাশ ঘটে। কিন্তু এটাও ঠিক যে, নেতৃত্বই কাউন্সিলের একমাত্র বিষয় নয়। কাউন্সিলের মাধ্যমেই একটি রাজনৈতিক দলের চিন্তা-চেতনা দলের তৃণমূল পর্যন্ত সঞ্চারিত হয়। রাজনীতির দিকনির্দেশনা হয়।

সদ্য সমাপ্ত হওয়া বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কাউন্সিল ও জনগণের ক্ষমতায়ন প্রসঙ্গে আওয়ামী যুবলীগের চেয়ারম্যান একান্ত সাক্ষাৎকারে খোলামেলাভাবে এসব কথা বলেন।

ওমর ফারুক চৌধুরী বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ জনগণের অধিকার আদায়ের মধ্য দিয়ে বিকশিত হওয়া দেশের প্রাচীন গণতান্ত্রিক সংগঠন। এ সংগঠনটির জন্ম হয়েছিল মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য। এখন সংগঠনটি মানবাধিকার এবং জনগণের অধিকার আদায়ের জন্য উৎসর্গিত।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ বাঙালির অধিকার আর বাঙালির জাগরণের ক্ষত্রে একে অন্যের পরিপূরক। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে এ দলটির বিকাশের ইতিহাস এক এবং অভিন্ন। বাঙালির জাগরণ আমাদের মুক্তিযুদ্ধের গৌরবগাঁথা। ’৭৫ সালের ১৫ আগস্টের বিপর্যয় এবং ’৮১-তে বাঙালির পুনরুত্থানের ইতিহাস আমাদের সবার জানা। যারা বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ও তার চিন্তা-চেতনা-আদর্শকে সমূলে ধ্বংস করতে চেয়েছিল তারা চিহ্নিত হয়েছে। বাঙালি জাতির কাছে সেই অপশক্তিরা আজ প্রমাণিত। 

তিনি বলেন, এ বিজয়ের মাসে আমরা দুটি ঐতিহাসিক বিজয় অর্জন করেছি। সম্প্রতি রাষ্ট্রনায়ক বিশ্বনেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর জনগণের ক্ষমতায়ন মডেলটি জাতিসংঘে সর্বসম্মতভাবে গৃহীত হয়েছে। এটি শুধু বাংলাদেশের নয়, সারাবিশ্বের শান্তিকামী মানুষের জন্য একটি বিরাট অর্জন।

ওমর ফারুক বলেন, আমরা যারা আদর্শের জন্য, জনগণের কল্যাণের জন্য রাজনীতি করি তাদের জনগণের ক্ষমতায়ন চেতনাটি হৃদয়ে ধারণ করা জরুরি। জনগণের ক্ষমতায়ন দর্শনের মূল কথা হল জনগণই স্বার্বভৌম, তারা যত বেশি অধিকার লাভ করবে, তত বেশি আমরা শান্তির পথে এগুবো। জনগণের ক্ষমতায়ন শুধু একটি শান্তির দর্শনই নয়, এটি একটি পূর্ণাঙ্গ রাজনৈতিক দর্শন। জনগণের ক্ষমতায়ন হলে মানুষের ভোটের অধিকার প্রতিষ্ঠিত হয়, যেমন তার প্রমাণ এখন হয়েছে।

বর্তমান সরকার আমলে অনুষ্ঠিত প্রতিটি নির্বাচন প্রক্রিয়ার স্বচ্ছতার ইঙ্গিত দিয়ে ওমর ফারুক চৌধুরী বলেন, এ সরকার আমলের কোনো নির্বাচন নিয়ে প্রশ্ন ওঠেনি। জনগণের ক্ষমতায়ন হলো মানবাধিকার, আইনের শাসন প্রতিষ্ঠিত হওয়া। যার উদাহরণ জেগেছে মানুষ, পেয়েছে অধিকার। যুদ্ধাপরাধীর বিচার রুখবে এমন সাধ্যকার। তিনি বলেন, সামগ্রিকভাবে এতে জনগোষ্ঠীরই কল্যাণ হয়েছে। তার উদাহরণ আজকের বাংলাদেশ। যারা জঙ্গি, সন্ত্রাসী, অবৈধ শাসক, স্বৈরাচার কিংবা যারা তত্ত্বাবধায়ক সরকারের ‘ফাইভ’ স্টার, ‘সেভেন’ স্টার, লাঠিতন্ত্র, কুড়াল তত্ত্বের প্রবক্তা তারা জনগণের ক্ষমতায়নের বিপক্ষ শক্তি। যারা দেশকে জঙ্গিরাষ্ট্র বানাতে চায়, দেশের মানুষের শান্তি বিনষ্ট করতে চায়, তারাই আজ আন্দোলনের নামে আবার জনগণকে অধিকারহীন ও ক্ষমতাহীন করতে চাইছে। 

বিশ্বসমাজ ও রাষ্ট্রের কাছে অতীতে প্রতিবন্ধী একধরনের ‘বুঝা’ ছিল উল্লেখ করে ওমর ফারুক চৌধুরী বলেন, জাতিসংঘে অটিজম ডেভলপমেন্ট ডিজঅর্ডার রেজুলেশনটি সর্বসম্মতভাবে গৃহীত হয়েছে। এ প্রস্তাবের অন্যতম উদ্যোক্তা রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা তনয়া সায়মা ওয়াজেদ হোসেন পুতুল। তিনি বাংলাদেশের অটিস্টিক জাতীয় উপদেষ্টা কমিটির চেয়ারপারসন এবং আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন মনোবিজ্ঞানী। তিনি ‘অটিজম স্পিকস’-এর কো-ফাউন্ডার। এ প্রস্তাবটি গৃহীত হওয়ার পর অটিস্টিকদের অধিকার আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত হলো। এ অধিকারের কথাই সায়মা হোসেন দীর্ঘদিন ধরে বলে আসছিলেন। তিনি বলেন, অটিজমের স্বীকৃতি জনগণের ক্ষমতায়ন বিশ্বশান্তি দর্শনেরই একটি বিজয়। এ দর্শনের একটি অন্যতম বৈশিষ্ট্য হলো সমাজের বঞ্চিত এবং পিছিয়েপড়া জনগোষ্ঠীকে উন্নয়নের মূলস্রোতে নিয়ে আসা। জাতিসংঘে এ প্রস্তাবটি সর্বসম্মতভাবে গৃহীত হওয়ায় সেই পথেই বিশ্ব একধাপ এগোলো। তাই আজ মানুষকে সিদ্ধান্ত নিতে হবে তারা জনগণের শাসন চায় নাকি জঙ্গি শাসন চায়। আমি মনে করি, এ জন্যই কাউন্সিল অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এ কাউন্সিলের মাধ্যমে জনগণের মাঝে ক্ষমতায়ন দর্শনটি সঞ্চারিত হবে। সেটাই হবে আদর্শের রাজনীতির সবচেয়ে বড় বিজয়।

রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার তথ্যকণিকা

পরিচিতি
ভাষণ
বার্তা

চেয়ারম্যান ডেস্ক

পরিচিতি
ভাষণ
বার্তা

সাধারণ সম্পাদক ডেস্ক

পরিচিতি
ভাষণ
বার্তা

যুবলীগ প্রকাশনা