যুবলীগ সংবাদ :

শোকাবহ আগস্ট মাসব্যাপী বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের কর্মসূচী যুবজাগরণ পাঠাগার ও বিক্রয়কেন্দ্র উদ্বোধন বঙ্গমাতাকে নিয়ে যুবলীগের স্মারকগ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে রুখে দাড়াতে হবে : যুবলীগ চেয়ারম্যান জঙ্গিমুক্ত দেশ গড়তে যুবলীগের শপথ রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস পালিত শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে যুবলীগের সপ্তাহব্যাপী কর্মসূচি স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে যুবলীগের শ্রদ্ধাঞ্জলী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষ্যে যুবলীগের শ্রদ্ধাঞ্জলী বইমেলায় যুবলীগের নান্দনিক আয়োজন যুবলীগ চেয়ারম্যান সম্পাদিত বইয়ের মোড়ক উন্মোচন আওয়ামী যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান শেখ ফজলুল হক মনির ৭৭ তম জন্মদিন পালিত। পৌর নির্বাচনী প্রচারণায় যুবলীগের কমিটি গঠন মোমবাতি জ্বালিয়ে শহীদদের প্রতি যুবলীগের শ্রদ্ধা মালয়েশিয়ায় যুবলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার অগ্রযাত্রার মিছিলে তারুণ্যের প্রেরণা আর সাহসের দিন শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস---যুবলীগ চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ওমর ফারুক চৌধুরী
জঙ্গিমুক্ত দেশ গড়তে যুবলীগের শপথ
2016/07/14 01:12 PM

আজ ১৩ জুলাই রোজ বুধবার বিকাল ৩.০০ ঘটিকায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ ঢাকা মহানগর দক্ষিন আয়োজিত যুব মহাসমাবেশ প্রধান অতিথির বক্তব্যে কৃষমিন্ত্রী ও আওয়ামী লীগরে সভাপতমিণ্ডলীর সদস্য মতয়িা চৗেধুরী বলছেনে, আমরা বিজয়ী জাতি। জঙ্গীবাদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে আমরা বিজয়ী হবই। তিনি বলন, জঙ্গীরা মানুষ না, মুসলমানও না। এরা মানুষরূপী শয়তান। এই শয়তানদরে বাংলার মাটি থকেে উৎখাত করতে হব।
তিনি আরো বলনে এই দেশে সন্ত্রাসীদরে বিচারের মুখােমুখি করা হব। আইনরে মাধ্যমইে একদনি তাদের শেষ পরণতির দিকে যেতে হব। তিনি বলন, শেখ হাসনাির পদভারে জঙ্গবািদ নিশ্চিহ্ন হবে, নিষ্পেষিত হবে। শেখ হাসনাির এই মাত্র দুটি পা নয়, ১৬ কোটি শান্তিকামী মানুষের পায়ের শক্তি এখন শেখ হাসনাির পায়ে, এটা তাদরে বুঝতে হব।আজকের আহ্বান রুখে দাঁড়াও বাংলাদেশ। আমি অন্তরের অন্তরস্থল, হৃদয়রে গভীর থকেে বিশ্বাস করি—শেখ হাসনাির এই আহ্বান বাংলাদেশের প্রতিটি মানুষের অন্তরের আহ্বান। যদি তাই না হতো-তাহলে দেখন না যারা (জঙ্গরাি) গুলশানে ও শোলাকিয়ায় মারা গেছে তাদের নিকটজন তাদের লাশ আনতে যায়নি। মর্গে পড়ে থাকে ওই লাশ। লজ্জা, ঘৃণা এবং ধিক্কার জানাই ওইসব সন্তানদর। তাদের মায়েরা মানুষরে সামনে চােখের জল পযন্ত ফেলে না। এর চাইতে জঘন্য জীবন আর কি হতে পার? যখন ছেলের জন্য মা চােখের পানি ফেলতে পারে না লজ্জায় ভয়ে, ঘৃণার ভয়ে জনরোষের ভয়ে। ধিক সেই সন্তান, ধিক সেই জঙ্গীদের। যার মা একটু কাঁদতওে পারে না।
তিনি বলেন কারা এই জঙ্গকেি প্রশ্রয় দিচ্ছে, লালন করছে এই জঙ্গীবাদের বিষাক্ত দাঁত বাংলার সুজলা, সুফলা বাংলাকে আচ্ছন্ন করছে, রক্তাক্ত করছে। আমি বলি—খালেদা জিয়া অভ্যুত্থান দেখা আপনার একটা স্বপ্ন বিলাস।
সিঙ্গাপুরের আদালতে চার বাংলাদেশীকে জঙ্গীর অর্থায়নের দায়ে শাস্তি দেওয়ার কথা উল্লেখ করে বলন, গ্রাম-গঞ্জে একটা কথা আছে—এক হাঁসে নষ্ট করে সাত পুকুরের পানি। এই কয়েকজন র্দুষ্কম করে আর বিদেশে বাঙালীদের চাকরির বাজার সংকুচতি হয়ে যায়। আর আমাদের দিকে অঙ্গুলি নির্দেশ করা হয়। পাড়া-মহল্লায় সমাজ ও রাষ্ট্রবিরোধী কর্মকাণ্ড যারা করে তাদরে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে সাের্পদ করার জন্য যুবলীগের নেতা-কর্মীদের নির্দেশ তিনি।
প্রধান বক্তা হিসাবে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের চেয়ারম্যান বলেন রমজান মাস পবিত্র মাস-এবাদতের মাস-এই মাসে গুলশানে-আবার শোলাকিয়ায় ঈদের জামাতে কি ভয়াবহ কান্ড-তাও ইসলামের নামে। এই বর্বরতা গোটা ইসলামের নামে কলংক আনছে কারা? ইসলাম ধর্মে রমজান মাসকে এতটাই পবিত্রতা দান করা হয়েছে, এই মাসে সর্ব প্রকার বিরোধ ও শত্রুতা থেকে বিরত থাকার জন্য মুসলমানদের ওপর নির্দেশ রয়েছে। এই মাসে স্বয়ং মহানবী (সঃ) তার শত্রুপক্ষের সঙ্গে যুদ্ধ করা থেকে বিরত থাকতেন এই মাসে। প্রথম ক্রসেভের যুদ্ধে মুসলমানরা খ্রিষ্টানদের সঙ্গে এক মাসের যুদ্ধ বিরতির সন্ধি করেছিলেন। আর বাংলাদেশে এবারের শাওয়ালের চাঁদকে কারা রক্তমাখা বাঁকা তরবারি করল? কারা করল-কি উদ্দেশ্য কি প্রয়োজনে-কে বেনিফিসারী কেন লেখক-প্রকাশক-শিক্ষক-ব্লগার-গ্রামীন হোমিও ডাক্তার-বিদেশী হত্যা। কেন মসজিদের ইমাম-মুয়াজ্বিন-ইসলামি চিন্তাবিদ-হিন্দু ধর্মীয় সেবক-মন্দিরের পুরোহিত-গির্জ্বার যাজক-বৌদ্ব ভিক্ষুক-যারা ধর্মের কথা বলেন-যারা শান্তির কথা বলেন-বেছে বেছে তাদের হত্যা করা হচ্ছে কেন? তারাতো রাজনীতি করেন না-কোন উদ্দেশ্য সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মানুষকে হত্যা করা হচ্ছে ? অসম্প্রদায়িক রাষ্ট্র বাংলাদেশ কে সাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র বানানো ? সাম্প্রদায়িক দাঙ্গার ঘটনা ঘটাতে চাচ্ছে কে? বেগম খালেদা জিয়া-এই বেগম খালেদা জিয়া বলেছিল আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় আসলে মসজিদে উলুধ্বনি হবে এই খালেদা জিয়া বলেছিল আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় আসলে ফেনী পর্যন্ত ভারত হয়ে যাবে। এই খালেদা বলেছিল আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় আসলে বাংলাদেশকে ভারতে কাছে বিক্রি করে দেবে। এই বেগম খালেদা জিয়া আজ প্রমাণ করতে চায় সংখ্যালঘুরা বাংলাদেশে নিরাপদে নেই। মানুষের ওপর বিশ্বাস হারানোর কাজে হাত দিয়েছে-বেগম খালেদা জিয়া। এই যে মিথ্যাচার এই রোজার মাসে বিএনটি ঘরানার প্রতিটি ইফতার পার্টিতে দেশের সমস্যা, মানুষের সমস্যা, ধর্মীয় সন্ত্রাসের সমস্যা-ইত্যাদি নিয়ে কোন আলোচনা নেই। ওয়াজ নসিহত করেছেন ধর্মীয় না রাজনৈতিক। এই বেগম খালেদা জিয়ার প্রতি ইফতার পার্টিতে কাজ একটাই ওয়াজ রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা আর সজীব ওয়াজেদ জয় এর বিরুদ্ধে মিথ্যা, কুৎসা, গালমন্দ, চরিত্র হনন করা, গবিত করার কাজে ব্যস্ত ছিলেন। কি বলতেন দুঃশাসনের বিরুদ্ধে রক্তাক্ত অভ্যূন্থানের কথা বলেছেন। বলেছেন-প্রধানমন্ত্রী পদে ইস্তফা দিতে বলেছেন সরকারের উচিত নির্বাচন দিয়ে সরে দাঁড়ান-পদত্যাগ দাবী করেছেন। পদত্যাগ দাবী এ মুহুর্তে কেন? খোয়াব দেখছেন কি হাওয়া ভবন খোয়াব ভবন খুলবেন। ও, তাই ভয়ঙ্কর ড্রাগে আসক্তিতে জঙ্গী তৈরির কারখানা খুলেছেন-তাই-ক্যান্টাগন আর আস্কিটানিন ট্যাবলেট প্রয়োগে সব সম্ভব হবে ভাবছেন। যুদ্ধাপরাধীদের নিয়ে আবার ক্ষমতায় বসবেন-তালেবানতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত হবে বাংলাদেশে? আবার সন্ত্রাসের প্রশ্নে সংলাপ চাচ্ছেন। কি সন্ত্রাস দমনের জন্য নাকি নিজেকে বাঁচানোর জন্য ? জাত গেল-মান গেল-রাজনীতি গেল-অস্তিত্ব গেল-গেল তো গেলই। বেগম খালেদা জিয়ার চরিত্রের বৈশিষ্ট্য কি? তিনি বারবার মিথ্যা কথা বলে আবার ধরা পড়লেও লজ্জা পান না। বলা হয় লজ্জা নারীর ভূষন-কিন্তু বেগম খালেদা জিয়ার ভূষন নয়। কার্টুনিষ্টদের প্রতি অনুরোধ বেগম খালেদা জিয়ার আসল চরিত্রটি তুলে ধরে জাতিকে তার একটি পোট্রেট উপহার দিন। মনে রাখতে হবে-৭১এর যুদ্ধাপরাধীর বিচার ও দন্ডদানে এরা রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার সরকারের ওপর প্রতিশোধ গ্রহনে বদ্ধপরিকর। দন্ডিত যুদ্ধাপরাধীদের পরিবারবর্গ সমস্ত ধন সম্পদ নিয়ে লন্ডনে অবস্থানরত বিএনপির হেড অফিস বিলেতে-তারেক রহমানের নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ হয়েছে। জঙ্গী বা আইএস এর উপর দোষ চাপিয়ে বিবৃতি দিলে হবে না স্পষ্ট করতে হবে সাধারণ মানুষের মনের আতঙ্ক দূর করতে হবে। আমরা যারা দল করি-সংগঠন করি সংগঠক-সংগঠকের কাজ বহুমাত্রিক-আদর্শের চিন্তা ভাবনায় উদ্ধুদ্ধ করা-জনমত সৃষ্টি করা-রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার বিশ্বশান্তির দর্শন জণগনের ক্ষমতায়ন বাস্তবায়ন করা সত্য-মিথ্যার প্রভেদ দূর করা। এই সন্ত্রাসের ধারা আজ নয়-রমনার বটমূলে হামলা, ২১ আগষ্ট রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার সভায় গ্রেনেড হামলা-সিলেটের মাজারে ব্রিটিশ হাই কমিশনারকে হত্যা চেষ্টা, রাজপথে সন্ত্রাস-আগুন সন্ত্রাস-গাড়ীতে বোমা, বাসে বোমা, মানুষ পোড়ানো, বায়তুল মোকারমে কোরন শরীফ পোড়ানো, মুক্তমনা ব্লগার হত্যা, বিদেশী হত্যা, ইমাম হত্যা, ইসলামী চিন্তাবিদ হত্যা, হিন্দু পুরোহিত হত্যা সহ অসংখ্য হত্যা গুলশান-শোলাকিয়া একই সুত্রে গাথা। উদ্দেশ্য একটাই যুদ্ধাপরাধীদের বিচার বন্ধ করা, বাংলাদেশে অস্থিরতা সৃষ্টি, বিদেশী বিনিয়োগ বন্ধ করা। মর্জিা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলছেনে, ‘কথায় কথায় বএিনপ।ি সবকছিুর সঙ্গে বএিনপি জড়তি। বএিনপি যদি এত শক্তশিালী হয়, তাহলে কথায় কথায় বএিনপকিে নাকচ করে দচ্ছিনে কনে?’ নাজমুল হুদা ১৪ দলের নেতাদেও উদ্দেশ্যে বলেন, আপনারা খালেদাকে এত গুরুত্ব দিচ্ছেন কেন? আপনারা আপনাদেও কর্মসূচী নিয়ে এগিয়ে যান। ওনার কিছু করার ক্ষমতা নেই আসুন সর্বস্তরের মানুষকে সচেতন করি- সহায়তা করি-সজাগ করি- জনমত সৃষ্টি করি। গণমাধ্যমের সাথে সু-সম্পর্ক স্থাপন করি, সত্যকে উদঘাটন করে-সর্তক হয়ে সংবাদ প্রতিবেদন প্রচার করতে সহায়তা করি। গণমাধ্যমের অনুসন্ধানী প্রতিবেদন গুলো ব্যাপক প্রচার করার ব্যবস্থা করি। মানুষ খুন হবে-আতঙ্কের মধ্যে থাকবে-কোন দেশ প্রেমিক এটা মেনে নিতে পারে না। তাই আমাদের নীরব থাকলে হবে না। যত দ্রুত সম্ভব এ বিষয়ে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে। শুধু মাত্র আইন শৃংখলা বাহিনীকে দোষারূপ করলে হবে না। আসুন আইন শৃংখলা বাহিনীকে ধন্যবাদ জানাই যে সাহসিকতার পরিচয় দিয়েছে-আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের শোকরিয়া আদায় করি। এই খালেদা তারেকের বিএনপি হল জঙ্গীবাদ এবং ইহুদীবাদের এক বিষাক্ত মিশ্রন, যা সভ্যতা, অগ্রগতি ও প্রগতির ঘাতক। তাই বেগম খালেদা জিয়াকে আর্জেন্টিনার ইসাবেলা প্রেরনের মতো গণহত্যার দায়ে আসামীর কাঠ গড়ায় দাড় করাই এবং জনমত সৃষ্টি করি। এই বিএনপি প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান বলেছেন পলিটিক্স ডিফিক্যাল্ট ফর পলিটিসিয়ান। বেগম খালেদা জিয়া আজ তাই এক্সিকিউট করেছেন বিএনপির সাথে জড়িত পলিটিসিয়ানদের জন্য। তিনি সফল হয়েছেন জঙ্গীবাদ-সন্ত্রাসবাদে। আসুন আজ বাংলা ও বাঙ্গালীর শেষ নির্ভরযোগ্য ঠিকানা রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার বিশ্বশান্তির দর্শন জনগণের ক্ষমতায়ন-ই হোক আমাদের অঙ্গীকার।
ঢাকা মহানগর দক্ষিন সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী স¤্রাট এর সভাপতিত্বে এবং ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রেজার পরিচালনায় আরো বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের দপ্তর সম্পাদক আব্দুস সোবহান গোলাপ, যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক মোঃ হারুনুর রশীদ, প্রেসিডিয়াম সদস্য ফারুক হোসেন, মাহবুবুর রহমান হিরন, আব্দুস সাত্তার মাসুদ, মোঃ আতাউর রহমান, এড. বেলাল হোসাইন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর একান্ত সচিব সাইফুজ্জামান শেখর, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মাকসুদ কামাল, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক মিজান চৌধুরী, সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি সাবান মাহমুদ, মোজাম্মেল হক বাবু, নিজাম হাজারী এমপি, স্বেচ্ছাসেবকলীগ সভাপতি মোল্লা মোঃ আবু কাওসার, যুব মহিলা লীগের সভাপতি নাজমা আক্তার, সাধারণ সম্পাদক অধ্যপক অপু উকিল, বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ, ঢাকা মহানগর উত্তর যুবলীগের সভাপতি মাইনুল হোসেন খান নিখিল, সাধারণ সম্পাদক ইসমাইল হোসেন, যুবলীগ দক্ষিনের দপ্তর সম্পাদক এমদাদুল হক এমদাদ প্রমুখ।
আরো উল্লেখ্য যে, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরী যুবলীগ নেতাকর্মীদের জঙ্গী ও সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে শপথ বাক্য পাঠ করান।

রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার তথ্যকণিকা

পরিচিতি
ভাষণ
বার্তা

চেয়ারম্যান ডেস্ক

পরিচিতি
ভাষণ
বার্তা

সাধারণ সম্পাদক ডেস্ক

পরিচিতি
ভাষণ
বার্তা

যুবলীগ প্রকাশনা