যুবলীগ সংবাদ :

যুবজাগরণ পাঠাগার ও বিক্রয়কেন্দ্র উদ্বোধন বঙ্গমাতাকে নিয়ে যুবলীগের স্মারকগ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে রুখে দাড়াতে হবে : যুবলীগ চেয়ারম্যান জঙ্গিমুক্ত দেশ গড়তে যুবলীগের শপথ রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস পালিত শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে যুবলীগের সপ্তাহব্যাপী কর্মসূচি স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে যুবলীগের শ্রদ্ধাঞ্জলী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষ্যে যুবলীগের শ্রদ্ধাঞ্জলী বইমেলায় যুবলীগের নান্দনিক আয়োজন যুবলীগ চেয়ারম্যান সম্পাদিত বইয়ের মোড়ক উন্মোচন আওয়ামী যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান শেখ ফজলুল হক মনির ৭৭ তম জন্মদিন পালিত। পৌর নির্বাচনী প্রচারণায় যুবলীগের কমিটি গঠন মোমবাতি জ্বালিয়ে শহীদদের প্রতি যুবলীগের শ্রদ্ধা মালয়েশিয়ায় যুবলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার অগ্রযাত্রার মিছিলে তারুণ্যের প্রেরণা আর সাহসের দিন শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস---যুবলীগ চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ওমর ফারুক চৌধুরী
যুবলীগের পূনর্মিলনী ও ‘গণতন্ত্রের জন্য সংগ্রাম’ শীর্ষক গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন
12/01/2013 7:17 PM

মানুষ পুড়িয়ে মারার প্রতিশোধ নেবে জনগণঃ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা

ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানস্থ শিখা চিরন্তনের সম্মুখের মাঠে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের ৪১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে পূনর্মিলনী ও  ‘গণতন্ত্রের জন্য সংগ্রাম’ শীর্ষক গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা।  

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন যুবলীগের চেয়ারম্যান মোঃ ওমর ফারুক চৌধুরী। বক্তব্য রেখেছেন  যুবলীগ সাধারন সম্পাদক মোঃ হারুনুর রশীদ সহ আমন্ত্রিত অতিথিরা।   

রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে যুবলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে যোগ দেন প্রধানমন্ত্রী, আওয়ামী লীগ সভাপতি, রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা । নির্মিত দৃষ্টিনন্দন সুবিশাল মঞ্চ থেকে যুবলীগ আয়োজিত এ জনসভায় আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার বেশ কিছু প্রশ্ন ছিল।

বিরোধীদলীয় নেতা খালেদা জিয়ার উদ্দেশে তার প্রশ্ন রাজনীতির নামে সহিংসতা ও নাশকতার দায় কীভাবে এড়াবেন তিনি। সংকট সমাধানে বিরোধীদলীয় নেতাকে টেলিফোন করে সংলাপের উদ্যোগ নেওয়ার বিষয়টি বক্তৃতায় তুলে ধরেন তিনি। শেখ হাসিনা বলেন, আমিই তাকে ফোন করলাম। আমি মনে করলাম, আমার নমনীয় হওয়া উচিত। আমি নমনীয় হয়ে ফোন করলাম। আসলে উনি (খালেদা) ইলেকশনই চান না। 

বিরোধীদলীয় নেতাকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, আগামী নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠু হবে। কতগুলো মন্ত্রণালয় চান? স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব চাইলেও দিতে রাজি। আসুন নির্বাচনে আসুন। বিএনপি নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন চাইলেও ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ‘সর্বদলীয়’ সরকার গঠন করে নির্বাচনের দিকে এগোচ্ছে।

শেখ হাসিনা বলেন, যতই চেষ্টা করুক, আল্লাহর রহমতে নির্বাচন ঠেকাতে পারবে না। দেশে অসাংবিধানিক ধারা চলবে না, আসতে দেব না।

বিরোধী দলের কর্মসূচিতে গাড়িতে আগুন ধরিয়ে মানুষ পোড়ানোর ঘটনায় বিএনপি চেয়ারপারসনের সমালোচনা করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, উনার মানবতা বলে কিছু নেই। ক্ষমতার জন্য উন্মাদ হয়ে গেছেন। একের পর এক ঘটনা ঘটানো হচ্ছে। রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা নাশকতাকারীদের প্রতিহত করার প্রস্তুতি নিতে দেশের প্রত্যেকটি এলাকায় যুবলীগের নেতা-কর্মীদের সক্রিয় হওয়ার আহ্বান জানান আওয়ামী লীগ সভাপতি। অগ্নিদগ্ধ হয়ে হাসপাতালে যারা রয়েছেন, তাদের তত্ত্বাবধানে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের একজন পরিচালককে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে বলে জানান তিনি। 

প্রধানমন্ত্রী বলেন, এই পোড়ানোর খেলা বন্ধ করেন। বাংলাদেশের মানুষ ক্ষেপলে, যারা পোড়ানোর হুকুম দিচ্ছেন, তাদের পোড়ানোর জ্বালা সহ্য করতে হবে। তিনি(খালেদা) জনগণের শান্তি চান না, অশান্তি চান। জনগণের শান্তি উনার ভালো লাগে না। অশান্তি বেগমের অশান্তিতে জনগণকে পুড়িয়ে মারছেন। বিএনপির শীর্ষ নেতাদের উদ্দেশে তিনি বলেন, আন্দোলন করছেন, লুকিয়ে করছেন। লোক ভাড়া করে মানুষ পোড়াচ্ছেন। আন্দোলন করতে হলে রাস্তায় নামেন। রাস্তায় দেখা হবে, কার কত শক্তি, দেখা যাবে। 

প্রধান বিরোধী দল যুদ্ধাপরাধীদের রক্ষায় আন্দোলন করছে দাবি করে তিনি বলেন, যুদ্ধাপরাধীদের বিচার হচ্ছে এজন্য বিএনপি নেত্রীর মনে খুব দুঃখ। বিএনপি নেত্রী আদৌ স্বাধীনতা চাইতেন কি না? তার জন্ম তো বাংলাদেশে না, ভারতের শিলিগুড়ির চা বাগানে তার জন্ম । সেজন্য, দরদ নেই। খালেদা জিয়ার জন্ম তারিখ নিয়ে প্রশ্ন তুলে শেখ হাসিনা বলেন, একজন মানুষ কতবার জন্মায় ? তার অনেক জন্মদিন । ’৯৩ সাল থেকে উনি ১৫ অগাস্ট জন্মদিন পালন করছেন। যেদিন আমি শোকে কাতর, সেদিন তিনি ফূর্তি করেন, ১৫ আগস্ট ট্রাজেডি স্মরণ করে বলেন বঙ্গবন্ধুকন্যা। ড. হুমায়ুন আজাদ আক্রান্ত হয়ে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় ঢাকা সেনানিবাসে গাড়ি থামিয়ে দেওয়ার কথাও উল্লেখ করেন শেখ হাসিনা। ড. কামাল হোসেন, আকবর আলি খান, সুলতানা কামালের দিকে ইঙ্গিত করে তিনি বলেন, এখন যারা বিবৃতি দেন, তাদের অনেকেই তো উপদেষ্টা ছিলেন। তারাই ২০০৬-এ নির্বাচন করতে ব্যর্থ হয়ে পদত্যাগ করল। এই ব্যর্থ লোকগুলো আবার সবক দেয়, রাষ্ট্রপতির সঙ্গে দেখা করে।  

যুবলীগের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরীর বলেন, আজকের অনুষ্ঠানের সম্মানিত প্রধান অতিথি, ‘জনগণের ক্ষমতায়ন’ বিশ্বশান্তি দর্শনের প্রবক্তা, জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠার রূপকার, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি, রূপকল্প ২০১২-এর স্থপতি, আধুনিক বাংলাদেশের স্বপ্নদ্রষ্টা, উন্নয়ন ও অগ্রযাত্রার বাংলাদেশের কাণ্ডারি রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে, ১৫ আগস্টে শহীদদের, চার জাতীয় নেতাকে, যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান শেখ ফজলুল হক মনিকে, ’৫২-র ভাষা আন্দোলন, ’৬৯-এর গণআন্দোলন এবং ’৭১-এর মহান মুক্তিযুদ্ধে বীর শহীদদের, ২১ আগস্টসহ বিভিন্ন গণতান্ত্রিক আন্দোলনের শহীদদের শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করে ওমর ফারুক চৌধুরী বলেন, ১৯৭৫-এর ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে নির্মমভাবে হত্যা করে স্বাধীনতাবিরোধী প্রতিক্রিয়াশীল চক্র।

 জাতির পিতাকে হত্যা করা হয়েছিল আসলে বাংলাদেশের অস্তিত্ব মুছে ফেলার জন্য। জাতির পিতাকে হত্যার পর খুনি জিয়া ক্ষমতায় এসে আমাদের পবিত্র সংবিধানকে বুটের তলায় পিষ্ট করে, মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার হরণ করে। বাঙালি জাতি যখন নেতৃত্বহীন, দিশেহারা তখন বাঙালি জাতির অস্তিত্ব রক্ষার সংগ্রামে এগিয়ে আসেন রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা। সংগঠনের গৌরবোজ্জ্বল অতীত উল্লেখ করে তিনি বলেন, আজ বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ তার ৪১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদ্যাপন করছে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্দেশে শেখ ফজলুল হক মনির নেতৃত্বে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। জাতির পিতা যুবলীগ প্রতিষ্ঠা করেছিলেন এক দূরদৃষ্টি এবং প্রজ্ঞা নিয়ে। এদেশের যুবসমাজ যেন সত্যিকারে যোগ্য নেতৃত্ব হিসেবে গড়ে ওঠে, মেধা ও মননের বিকাশ ঘটে আমাদের তারুণ্যে, তারা যেন মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বাংলাদেশকে উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারে সেই স্বপ্ন নিয়েই যুবলীগ প্রতিষ্ঠা করা হয়েছিল। যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান শেখ ফজলুল হক মনি ছিলেন একজন বহুমাত্রিক যুবক। মুক্তিযুদ্ধের পর তার নেতৃত্বে যুবলীগ জাতির পিতার নির্দেশে যুদ্ধ বিধ্বস্ত দেশকে বির্নিমাণে এগিয়ে আসে। দেশ পুনর্গঠনের কাজ শুরু করে। 

ওমর ফারুক চৌধুরী বলেন, প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর এই অনুষ্ঠানে আমি দৃঢ়কণ্ঠে বলতে চাই, ১৯৮-র ১৭ মে যদি আপনি জীবনের মায়া ত্যাগ করে আপনার প্রিয় স্বদেশে না ফিরতেন, তাহলে জনগণ তাদের মৌলিক অধিকার ফিরে পেতো না, মানুষের ভাত ও ভোটের অধিকার প্রতিষ্ঠিত হতো না। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা পুনঃপ্রতিষ্ঠিত হতো না। বাংলাদেশ হতো আরেকটি পাকিস্তান অথবা আফগানিস্তান। বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ মনে করে আপনিই হলেন বাঙালির পূণর্জাগরণের নেত্রী। আপনার নেতৃত্বেই বাংলাদেশ স্বৈরতন্ত্রের শৃঙ্খল থেকে গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে পরিণত হয়েছে। আজ বিশ্বে খাদ্য উৎপাদনে উদাহরণ বাংলাদেশ, বিদ্যুৎ খাতে গোল্ডেন ফাইভ পেয়েছে সরকার। শিক্ষা, কৃষি, শিল্পে, স্বাস্থ্যে বাংলাদেশ আজ বিশ্বের বিস্ময়। আপনার বলিষ্ঠতাই বাংলাদেশকে জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাসবাদের কলঙ্ক টিকা থেকে মুক্তি দিয়েছে। আপনার সঠিক, উদ্দীপ্ত নেতৃত্বে এবং নির্দেশনায় বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ ছিলো, আছে এবং ভবিষ্যতেও থাকবে। 

যুবলীগ চেয়ারম্যান বলেন,রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা ১৯৮১ সাল থেকে ‘গণতন্ত্রের জন্য সংগ্রাম’ শুরু করেছিলেন। আর এই সংগ্রামে রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার অগ্রণী সৈনিক ছিলো বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ। রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার গণতন্ত্রের সংগ্রামে যুবলীগের অনেক কর্মী রক্ত দিয়েছেন, আত্মত্যাগ করেছেন। এদের মধ্যে ইতিহাসে অমর হয়ে আছেন, চট্টগ্রামের মৌলভী সৈয়দ, বগুড়ায় খসরু এবং ঢাকার শহীদ নূর হোসেন। নূর হোসেন বুকে পিঠে ‘গণতন্ত্র মুক্তি পাক’ স্বৈরাচার নিপাত যাক। স্লোগান লিখে বুলেটকে আলিঙ্গন করেছিলেন। শহীদ নূর হোসেন হলেন রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার আদর্শের সৈনিক। আজ আমাদের শহীদ নূর হোসেনের মতোই আত্মত্যাগের প্রস্তুতি নিতে হবে। রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এখন চলছে গণতন্ত্র রক্ষার সংগ্রাম। এই সংগ্রামে আমাদের ঐক্যবদ্ধ থেকে জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাসবাদ, নৈরাজ্যবাদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে। তিনি বলেন, রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা গণতন্ত্রের জন্য এক দীর্ঘ ঐতিহাসিক সংগ্রাম করেছেন। তিনিই স্বৈরশাসনের চির অবসান ঘটিয়েছেন। এখন তিনি অনির্বাচিত, অপশক্তির ক্ষমতায় আসার পথ চিরতরে বন্ধ করেছেন। নির্বাচন এবং নির্বাচনই হবে ক্ষমতাবদলের একমাত্র পথ। অন্য কোনো পন্থায় ক্ষমতা গ্রহণের চেষ্টা হবে অপরাধ। বিএনপির রাজনীতির চরিত্র উল্লেখ করে ওমর ফারুক বলেন, ভাঁওতাবাজি যারা জানেন, তারা কী করে বিশ্বাস করেন, তাদের একটি দাবি অর্থাৎ তত্ত্বাবধায়ক সরকার দাবি মানা হলেই তারা সুবোধ বালকের মতো নির্বাচনে অংশ নেবেন? এখন তারা বলছেন তত্ত্বাবধায়ক সরকার দাবি মানা হলেই তারা আলোচনায় বসবেন। নির্বাচনে যাবেন সে কথা বলছেন না। আলোচনায় বসে তারা আবার নতুন নতুন দাবি তুলবেন। তত্ত্বাবধায়ক সরকার প্রধান কে হবেন? নির্বাচন কমিশনে সম্পূর্ণ রদবদল, প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে হবেন ইত্যাদি নানা ইস্যু নিয়ে আবার বিতর্কের জট তৈরি করা হবে। আলোচনা-বৈঠক ভেঙ্গে দেওয়া হবে অথবা ভেঙ্গে দেওয়ার হুমকি দেওয়া হবে। ওমর ফারুক চৌধুরী বলেন, তত্ত্বাবধায়ক সরকার দাবি মানা হলেই যে বিএনপি নির্বাচনে যাবে তা নয়। তত্ত্বাবধায়ক সরকার ক্ষমতায় বসার সঙ্গে সঙ্গেই তারা নতুন সরকারের কাছে দাবি তুলবেন, নির্বাচন শেষ না হওয়া এবং নির্বাচিত নতুন সরকার ক্ষমতায় না বসা পর্যন্ত ’৭১-এর যুদ্ধাপরাধীদের বিচার এবং যাদের দণ্ড ঘোষিত হয়েছে তাদের দণ্ড কার্যকর করা ইত্যাদি সব কিছু মুলতবি রাখতে হবে। 

স্পষ্টবাদী রাজনীতিবিদ ওমর ফারুক চৌধুরী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে যুব সমাজের পক্ষ থেকে আমাদের একান্ত অনুরোধ তিনি দেশের ও গণতন্ত্রের বৃহত্তর স্বার্থে বিএনপির সব দাবি মেনেও নেন, নির্বাচনকালীন সরকার প্রধানের পদ থেকে তিনি যেন কোনো কারণেই সরে না যান। কারণ আপনি সরে গেলে রাজনীতি চরমপন্থীদের হাতে চলে যেতে পারে। সেক্ষেত্রে, খালেদা জিয়া ইতিহাসে নারী মিরজাফর হিসেবে চিহ্নিত হবেন। গণতন্ত্র রক্ষাই আমাদের চ্যালেঞ্জ। যারা জাতির পিতাকে হত্যা করেছিল, যারা মাগুড়া, মীরপুরে মানুষের ভোটের অধিকার কেড়ে নিয়েছিল, যারা দেড় কোটি ভুয়া ভোটার করেছিল, যারা জাতির পিতার খুনিদের পবিত্র সংসদে বসিয়েছিল, যারা ৩০ লাখ শহীদের রক্তে রঞ্জিত আমাদের পবিত্র জাতীয় পতাকা দিয়েছিল ঘৃণ্য যুদ্ধাপরাধীদের গাড়িতে, আজ তারাই আবার দানবের রূপে এসেছে গণতন্ত্রকে ধ্বংস করতে। এরা আজ গণতন্ত্র ধ্বংসের জন্য মানুষ পুড়িয়ে মারছে, রেললাইন উপড়ে ফেলছে, যাত্রীবাহী বাসে আগুন দিচ্ছে, নিরীহ পথচারীদের হত্যা করছে। এদের লক্ষ্যে একটাই গণতন্ত্র ধ্বংস করা, আবার অবৈধ পন্থায় ক্ষমতা বদলের চেষ্টা। যুবলীগ চেয়ারম্যান বলেন, আমরা আসুন গণতন্ত্রের জন্য সংগ্রামের দ্বিতীয়পর্যায়ের লড়াইয়ে রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এক হই। এ লড়াই আমাদের যেমন শহীদ নূর হোসেনের মতো সাহস লাগবে, তেমনি শহীদ শেখ ফজলুল হক মনির মতো প্রজ্ঞা লাগবে। লাগবে আদর্শ। আর সে কারণেই এবারের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আমরা ‘গণতন্ত্রের জন্য সংগ্রাম’ শিরোনামে গ্রন্থটি প্রকাশ করেছি।

এ প্রসঙ্গে আমি দুটি কথা বলতে চাই, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব গ্রহণ করে আমি আপনার নির্দেশে মেধা ও মননের চর্চা শুরু করি। একটি গবেষণা সেল গঠন করে, আমরা রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার রাজনৈতিক দর্শন নিয়ে গবেষণা শুরু করি। কারণ সঠিক রাজনীতি অনুধাবন করতে গেলে নেতার রাজনৈতিক দর্শন সম্পর্কে সঠিক ধারণার বিকল্প নেই। তিনি বলেন, ২০১০ থেকে গবেষণা করে আমরা আবিষ্কার করি, রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার জীবন ও সংগ্রাম জনমনের জন্য, জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্যই। রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা তার সব কর্মকাণ্ড করেন ‘জনগণের ক্ষমতায়ন’ এর জন্য। ‘জনগণের ক্ষমতায়ন’-এর এই দর্শন নিয়ে আমরা যাই বিশ্বের বিভিন্ন দেশের স্বনামধন্য বিশ্ববিদ্যালয়ে, বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থায়। এই দর্শন সারা বিশ্বে প্রশংসিত হয়। ২০১১ সালে রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার ‘জনগণের ক্ষমতায়ন’ দর্শন জাতি সংঘে সর্বসম্মতভাবে গৃহীত হয়। আর ২০১২ সালে আমরা এই দর্শনের ওপর রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার দর্শন শিরোনামে একটি প্রামাণ্য গ্রন্থ প্রকাশ করি। এবার আমরা প্রকাশ করলাম রাষ্ট্রনায়ক শেখহাসিনার গণতন্ত্রের জন্য সংগ্রাম’ আমরা আশা করি, তরুণরা এই গ্রন্থটি পরে আমাদের গণতন্ত্রের সংগ্রাম সম্পর্কে জানবে এবং একে রক্ষার জন্য রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ হবে। এখন আমাদের গণতন্ত্র রক্ষার সংগ্রামের সময়। গণতন্ত্রকে এগিয়ে নেওয়ার সময়। তাই আজ সিদ্ধান্ত নিতে হবে আগামী নির্বাচন মানে ক্ষমতার পালাবদলের নির্বাচন নয়।

আগামী নির্বাচন জনগণের অধিকার, জনগণের কল্যাণ, জনগণের ক্ষমতায়ন, জনগণের উন্নয়ন থাকবে কি থাকবে না- সেই প্রশ্নেই আগামী নির্বাচন। আগামী নির্বাচন ইসলাম ধর্মকে বেইজ্জত না করার নির্বাচন। আগামী নির্বাচন নারীকে বেইজ্জত না করার নির্বাচন। নারীকে মানুষ মনে করার নির্বাচন। তিনি আরও বলেন, রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা আমাদের দেখিয়েছেন। যে স্বপ্ন সমুদ্র জয়ের মধ্য দিয়ে আমরা দেখেছি। পবিত্র কোরান শরীফে সুরা আর-রাহমানের ২১নং আয়াতে পরিষ্কার উল্লেখ আছে ‘ইয়াখরুজু মিনহুমাল লু লউ ওয়াল মারজ্বান। অর্থ উক্ত সমুদ্রদ্বয় থেকে মনি-মুক্তারাজি উদগত হয়। ব্রিটিশ পেট্রলিয়ামের জরিপে দেখা যাচ্ছে, পৃথিবীর ৪০ শতাংশ সোনা, ৮০ শতাংশ হীরা, ৬২ শতাংশ তেল, ৩৫ শতাংশ গ্যাস, ৬০ শতাংশ ট্রাইটোনিয়াম, থিলেনিয়াম, বক্সাইড, কোবাল্ট ও নিকেলের মতো প্রয়োজনীয় পদার্থ আছে। সমুদ্রের বালিকণায় ইউরোনিয়াম পাওয়া গেছে। যা পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপন করা যায়। 

যুবলীগের ৪১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর এই অনুষ্ঠানে ‘রাষ্ট্র নায়ক শেখ হাসিনার গণতন্ত্রের জন্য সংগ্রাম’ শীর্ষক গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন করা হয়।ইয়াসিন কবির জয়ের তত্ত্বাবধানে প্রকাশিত প্রামাণ্য গ্রন্থটির ওপর আলোচনায় অংশ নেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক আআমস আরেফিন সিদ্দিকী। অনুষ্ঠানে নাট্যব্যক্তিত্ব নাসিরউদ্দিন ইউসুফ বাচ্চু, মাতৃভাষা দিবসের স্বীকৃতির জন্য অবদানের জন্য রফিকুল ইসলাম, ক্রিকেটার মুশফিকুর রহিম, গলফার সিদ্দিকুর রহমান, সাহসী নারী হিসাবে শাহানা বেগম, অস্কারবিজয়ী নাফিস বিন জাফরকে সম্মাননা দেওয়া হয়। যুবলীগের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন ভূমিমন্ত্রী আমির হোসেন আমু, যুবলীগের সাবেক চেয়ারম্যান শেখ ফজলুল করিম সেলিম, জাহাঙ্গীর কবির নানক, যুবলীগ সাধারন সম্পাদক হারুনুর রশিদ প্রমুখ। 

এই সংবাদ বিভিন্ন সংবাদপত্রে পড়তে নিম্নের লিঙ্কগুলো ক্লিক করুনঃ
http://bangla.bdnews24.com/politics/article707132.bdnews
http://www.prothom-alo.com/bangladesh/article/86575/%E0%A6%AC%E0%A6%BF%E0%A6%8F%E0%A6%A8%E0%A6%AA%E0%A6%BF_%E0%A6%95%E0%A7%8D%E0%A6%B7%E0%A6%AE%E0%A6%A4%E0%A6%BE%E0%A6%B0_%E0%A6%9C%E0%A6%A8%E0%A7%8D%E0%A6%AF_%E0%A6%89%E0%A6%A8%E0%A7%8D%E0%A6%AE%E0%A6%BE%E0%A6%A6_%E0%A6%B9%E0%A7%9F%E0%A7%87_%E0%A6%97%E0%A7%87%E0%A6%9B%E0%A7%87_%E0%A6%AA%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%A7%E0%A6%BE%E0%A6%A8%E0%A6%AE%E0%A6%A8%E0%A7%8D%E0%A6%A4%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A7%80
http://www.banglanews24.com/detailsnews.php?nssl=271a70ea21e4a82b0852863ea9e3958a&nttl=30112013244256
http://www.amaderorthoneeti.com/content/2013/12/01/news0996.htm

 

 


রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার তথ্যকণিকা

পরিচিতি
ভাষণ
বার্তা

চেয়ারম্যান ডেস্ক

পরিচিতি
ভাষণ
বার্তা

সাধারণ সম্পাদক ডেস্ক

পরিচিতি
ভাষণ
বার্তা

যুবলীগ প্রকাশনা